ইউটিউব টিপস

নতুন ইউটিউবারদের জন্য পাঁচটি সেরা কনটেন্ট আইডিয়া

আসসালামু আলাইকুম,

যদি আপনার মাথায় সারাক্ষন youtube এর চিন্তা থাকে এবং আপনি একটি ইউটিউব চ্যানেল খোলার কথা ভাবেন তাহলে সবচাইতে প্রথমে যে প্রশ্নটি চলে আসে-সেটি খুবই কমন তার নাম হলো কিসের উপর ইউটিউব চ্যানেল খুলবো? ইউটিউব চ্যানেলের টপিক কি হবে? আর কোন টপিক ই বা আপনার জন্য লাভজনক হবে।

আপনি যদি একটি নতুন ইউটিউব চ্যানেল খোলার কথা ভাবেন তাহলে আপনার একটি লাভজনক কনটেন্ট আইডিয়া নিয়ে শুরু করতে হবে। তো আজকের এই আর্টিকেলে এমন কিছু বিষয় বা টপিক রয়েছে যেগুলো নিয়ে আপনি যদি চ্যানেল তৈরি করেন, তাহলে সম্ভাবনা আছে যে আপনি youtube চ্যানেল থেকে একটি ভালো ইনকাম জেনারেট করতে পারবেন।

এবং আই উইশ আপনি অনেক তাড়াতাড়ি আপনার সফলতার রাস্তায় পৌঁছে যেতে পারবেন। তবে সেটি পুরোটাই নির্ভর করে আপনার ইউটিউব ভিডিও কনটেন্ট এর কোয়ালিটির ওপর।

Capture Your Daily Life Moments-Vlogging

৮০% লোকেরাই অন্যদের জীবনের ব্যাপারে জেনে অনেক আনন্দ পেয়ে থাকেন। তারা কোথায় যাচ্ছেন, কি করছেন,কি খাচ্ছেন ,এমনকি কার সাথে কথা বলছেন।

আর সেই ধারাবাহিকতায় ব্লগিং আপনার জন্য অনেক লাভজনক কনটেন্ট আইডিয়া হিসাবে প্রমাণিত হতে পারে। আপনি আপনার নিজের চ্যানেলে নিজের জীবনের কিছু উত্তেজনাপূর্ণ ও সুন্দর বিষয় নিয়ে আপনার দর্শকদের জন্য ভিডিও বানাতে পারেন।

যেমন- কিছু বিষয়।
১. নিজের মতামত দেওয়া

২. নিজের জীবনে ঘটা ঘটনাগুলি শেয়ার করা

৩. কোথায় গেলেন ভালো ভালো জায়গার ব্যাপারে কথা বলা।

৪. নিজের চিন্তাধারা দিয়ে ভিডিও বানানো ইত্যাদি ইত্যাদি।


অনেকে নিজের প্রাত্যিক জীবনে ভালো ভালো অভিজ্ঞতা লোকজনের সামনে youtube চ্যানেলের মাধ্যমে শেয়ার করেছেন। এবং তাদের এই বিষয়ে থাকা অনেক চ্যানেলে লক্ষ লক্ষ সাবস্ক্রাইবার অনেক তাড়াতাড়ি জেনারেট করে ফেলেছেন।

কারন আমি আগেই বলেছি আমরা অন্যদের জীবনের ব্যাপারে জানতে পারলে অনেক আনন্দ পাই, আপনি যদি ইউটিউবের নতুন এবং প্রথম চ্যানেল তৈরি করে থাকেন। তাহলে এই টপিক টি আপনার জন্য বেস্ট ইউটিউব চ্যানেল আইডিয়া হিসাবে প্রমাণিত হবে।

আর এর প্রমাণ হচ্ছে এটি করার জন্য আপনার আলাদা কোন জ্ঞান বা অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হবে না, কেবল নিজের স্মার্ট ফোন ক্যামেরা দিয়েই ভিডিও বানানো যাবে খুব সহজেই।

Product unboxing YouTube channel

সহজ বাসায় বলি প্রোডাক্ট আনবক্সিং চ্যানেল মানে ভিডিওর মাধ্যমে যেকোনো নতুন প্যাক করা সিল করা প্রোডাক্ট খুলে তারপরে নিজের মত সেটি আনবক্স করা। এবং সেই প্রোডাক্ট এর ব্যাপারে লোকজনের দেখানো এবং বলা।

আজকাল যখনই নতুন কিছু ইলেকট্রনিক জিনিস-যেমন স্মার্টফোন ল্যাপটপ স্মার্ট টিভি ইত্যাদি মার্কেটে আসে ঠিক তখনই লোকেরা youtube চ্যানেলে প্রোডাক্ট এর ব্যাপারে জানতে চাই এবং দেখতে চাই। আর আমরা এই আনবক্সিং ভিডিওর মাধ্যমে খুব সহজেই কোন স্মার্ট ফোন বা কোন ইলেকট্রনিক প্রোডাক্ট এর ব্যাপারে লোকজনের জানাতে পারি।

প্রোডাক্ট আনবক্সিং করা ভিডিওর মাধ্যমে ভিউয়ার্সরা সেই প্রোডাক্টটির ডিজাইন ফিচার ইত্যাদি ইত্যাদি জানতে পারেন।

আপনি যদি রেগুলার নতুন নতুন গেজেট কিংবা স্মার্টফোন বা যেকোন ইলেকট্রনিক প্রোডাক্ট আনবক্স করে তার ভিডিও বানান তাহলে আপনার ইউটিউব চ্যানেল অনেক জলদি জনপ্রিয় হয়ে দাঁড়াবে।

youtube চ্যানেলের এই দারুন আইডিয়াটা আপনার জন্য অনেকটাই কাজে আসবে বলে আমরা মনে করি, তাই আপনি চাইলে এই আইডিয়াটি কাজে লাগাতে পারেন আশা করি সাকসেস খুব শিগগিরই পাবেন।

Product review channel

আমি আপনি বাজে কোন লোকই হোক না কেন এই সময় দাঁড়িয়ে আমরা যেকোনো ইলেকট্রনিক প্রোডাক্ট কেনার আগে অনলাইনে সেটা রিভিউ দেখার পর নির্ধারিত করি যে প্রোডাক্টটি ভালো হবে নাকি খারাপ হবে।

অনলাইন রিভিউ দেখে আমরা অনেক সহজেই যেকোনো ইলেকট্রনিক প্রোডাক্ট এর ফিচার ফাংশন এবং তার কাজের ব্যাপারে জানতে পারি। এক্ষেত্রে আপনি যদি প্রোডাক্ট রিভিউ চ্যানেল বানান তাহলে সেই চ্যানেলের ভবিষ্যৎ আমার মতে ভাল হবে।

আপনি কেবল নতুন নতুন ইলেকট্রনিক প্রোডাক্ট যেমন মোবাইল ল্যাপটপ ইত্যাদি ইত্যাদি ব্যবহার করে তাদের ফাংশন ফিচার সম্পর্কে মানুষকে জানাতে পারেন তাহলে খুব শীঘ্রই আপনি জনপ্রিয় হয়ে যাবেন ইউটিউবে।

বিশ্বাস করুন লোকেরা ইউটিউবে বিভিন্ন প্রোডাক্টের রিভিউ দেখে অনেক আনন্দ পেয়ে থাকেন এবং কিনার আগ্রহ হয়ে থাকে তাদের মনের মধ্যে।

Gaming channel

আপনি যদি একজন গেমার হন এবং মোটামুটি গেম প্লে করতে পারেন। সেটি এন্ড্রয়েডে হোক কিংবা পিসি গেমস হোক তাহলে আপনি নিজের খেলা গেমপ্লে ভিডিওটি রেকর্ড করে। নিজের ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করতে পারেন।

এভাবে আপনি নিজের পছন্দের গেমগুলি খেলতেও পারবেন এবং সেই গেম প্লে ভিডিও গুলো মানুষকে দেখিয়ে অনলাইনে ইনকাম করতে পারবেন।

ইউটিউবে আপনি লক্ষ্য করলেই দেখতে পারবেন এমনও গেমিং চ্যানেল দেখতে পারবেন যারা নিজেদের চ্যানেলে কেবলমাত্র গেম প্লে করে বা গেম প্লে ভিডিও আপলোড করে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করছে।

তাই আপনি যদি মোটামুটি গেমিং করতে পারেন তাহলে এই আইডিয়াটা আপনার জন্য দারুন হতে পারে, আর বর্তমান সময়ে গেমিং চ্যানেল করে অনেকেই অনেক দ্রুত সাকসেস হয়ে যাচ্ছে। তো আপনি চাইলে এই আইডিয়াটিও কাজে লাগাতে পারেন।

Tutorial channel

আজকাল লোকেরা বিভিন্ন জিনিস শেখার জন্য ইউটিউবে গিয়ে ভিডিওর মাধ্যমে সেটা শিখতে চান। তাই আপনার যদি তেমন কোন বিশেষ কাজের অভিজ্ঞতা থাকে কোন প্রফেশনাল দক্ষতা থাকে তাহলে সেই বিষয়ে ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে আপনি লোকজনের শিখাতে পারেন।

আপনি লক্ষ্য করলে বুঝতে পারবেন আজকাল স্কুল এবং কলেজের পর মানুষজন যদি কোথাও কিছু শিখতে আসেন তাহলে সেটি নিঃসন্দেহে youtube।

এবং আপনি আপনার অভিজ্ঞতার উপরে যে কোন বিষয়ে ভিডিও বানিয়ে লোকজনের সাথে সেটি শেয়ার করতে পারবেন।

র এক্সাম্পল-

১. ব্লগিং টিউটোরিয়াল চ্যানেল।

২. ইউটিউব টিউটোরিয়াল চ্যানেল।

৩. অনলাইন আর্নিং টিউটোরিয়াল।

৪. অ্যান্ড্রয়েড টিউটোরিয়াল এবং কম্পিউটার টিউটোরিয়াল।

জেনে নিনঃ কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন? ইউটিউব টিপস

এগুলোর বাইরেও আপনি আরো অনেক রকমের টিউটোরিয়াল ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে পারেন। youtube এ যে কোন ধরনের টিউটোরিয়াল চ্যানেল আজকাল অনেক তাড়াতাড়ি জনপ্রিয় হয়ে যাচ্ছে। তাই এটিও আপনার জন্য একটি বেস্ট আইডিয়া হতে পারে youtube এ ক্যারিয়ার শুরু করার জন্য।

এই ছিল আমাদের আজকের youtube কনটেন্ট এর ওপর দারুন সব আইডিয়া। এই আইডিয়াগুলোর মধ্যে কোন আইডিয়া সবচাইতে ভালো লেগেছে তা কমেন্ট সেকশনে জানাতে পারেন।

তো ভিউয়ার্স কেমন লাগলো পোস্টটি ? পোস্টটি যদি ভালো লেগেই থাকে তাহলে শেয়ার করে বন্ধুদের কাছে ছড়িয়েও দিতে পারেন আজকের মত এ পর্যন্তই আল্লাহ হাফেজ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
error: Content is protected !!